তাঁরাও ভোজনরসিক

Food Gossip | By SMSarwarZahanNannu Created May 25, 2016

তাঁদের কেউ জনপ্রিয় তারকা কিংবা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব। প্রতিটি দিনই কাটে ব্যস্ততায়। তাই বলে কি পছন্দের খাবার থেকে নিজেকে বঞ্চিত করবেন? একটু ফুরসত পেলেই বন্ধু কিংবা পরিবারসহ বেরিয়ে পড়েন পছন্দের খাবারের খোঁজে। কেউ কেউ বাড়িতেই একা কিংবা বন্ধুদের নিয়ে খেতে পছন্দ করেন। কয়েকজন তারকার পছন্দের খাবার নিয়ে এই আয়োজন

.

বারাক ওবামা
নিজেকে মোটামুটি রসিক মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা। গুরুগম্ভীর সংলাপের মধ্যেও রসিকতা থাকে তাঁর। এ রকম রসিক একজন মানুষ যে খাদ্যসচেতন হবেন, তা জানা কথা। তাঁর কার্যালয় ওভাল অফিসের কফি টেবিলে সব সময় কাঠের এক গামলাভর্তি তাজা আপেল থাকে। হুটহাট দোকানে ঢুকে আইসক্রিম কিনতেও দেখা গেছে তাঁকে। কোথাও বেড়াতে গেলে সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে রেস্তোরাঁয় খেতে যান। তাঁর পরিবারের জন্য হোয়াইট হাউসে আলাদা করে মধুর চাষ করা হয়। ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা একবার সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, ম্যাক্সিকান স্ন্যাক্স গুয়াকামোল ও নাচোস বারাক ওবামার পছন্দের। আর সবজির মধ্যে ব্রকোলি।

মিশেল ওবামা
প্রচণ্ড স্বাস্থ্যসচেতন না হয়ে নাকি মার্কিন প্রেসিডেন্টের বাসভবন হোয়াইট হাউসে থাকার উপায় নেই। কয়েক প্রস্থ পরীক্ষার পরেই সে ভবনের বাসিন্দাদের পাতে খাবার ওঠে। ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামারও তাই স্বাস্থ্যকর খাবারেই অভ্যস্ত হওয়ার কথা। তবে তাঁর পছন্দের খাবার নাকি পিৎজা। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি পিৎজার নাম এতটাই কিশোরীসুলভ আগ্রহে নিয়েছিলেন, যেন সামনে পেলে স্থান-কাল-পাত্র ভুলে তখনই গপাগপ গিলতে থাকবেন। স্কুলের লাঞ্চবক্সে স্বাস্থ্যকর খাবার সরবরাহ নিয়ে যে মানুষটি রীতিমতো আন্দোলন করেছেন, তাঁর মুখে এমন কথা শুনে অনেকেই হতবাক হয়েছেন। তবে মিশেলের মতে, পিৎজা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী কিংবা ক্ষতিকর দুটোই হতে পারে। কীভাবে? ‘প্রতি শুক্রবারে আমি সবজি-পিৎজা খাই, আপনি ডেজার্টের জন্য বিশেষ পিৎজা তৈরি করে নিতে পারেন। এটি এমন একটি খাবার, যা বিভিন্নভাবে তৈরি করা যায়।’ বলেছিলেন তিনি। বোঝা গেল। সঙ্গে আর কিছু? হাসতে হাসতে মিশেল যোগ করেছিলেন, ‘ফ্রেঞ্চ ফ্রাই!’

মার্ক জাকারবার্গমার্ক জাকারবার্গ
ভোজনরসিক তারকাদের তালিকায় ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের নাম খুব একটা উচ্চারিত হয়নি কখনো। প্রযুক্তি ভালো বোঝেন, প্রযুক্তি নিয়েই থাকেন। হুডি পরা প্রোগ্রামারদের মতো কফি আর বিয়ার পান করতে দেখা যেত তাঁকে। এখন অবশ্য খাবারদাবারের ব্যাপারে খুব একটা মুখ খোলেন না। নিরামিষাশী বলে খ্যাতি ছড়িয়েছে একবার। তবে মার্ক নিজেই বলেছেন, ‘আমি শুধু সে প্রাণীর মাংস খাই, যে প্রাণী আমি নিজ হাতে হত্যা করেছি।’ শিকারি বটে!
শচীন টেন্ডুলকার

শচীন টেন্ডুলকার
ভারতীয়দের খাবারপ্রীতি কিন্তু জগদ্বিখ্যাত। আর মুম্বাই শহরে বেড়ে উঠলে দেশীয় খাবারের সঙ্গে যোগ হয় বিদেশি খাবার চেখে দেখার সুযোগ। কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার ঠিক তেমনই। দেশে দেশে ঘুরতে হয়েছে। নানা পদের খাবার পড়েছে সামনে। একদিকে লোভনীয় সব খাবার, অন্যদিকে খেলোয়াড়সুলভ স্বাস্থ্যসচেতনতা—নিশ্চয় অনেক ‘ব্যালান্স’ করে চলতে হয়েছে। বাংলাদেশে এসে একবার সে সময়ের জাতীয় দলের খেলোয়াড় মোহাম্মাদ আশরাফুলের আমন্ত্রণে ইলিশভাজা খেয়ে খুব তারিফ করেছিলেন। অবশ্য যেকোনো মাছের তরকারি তাঁর পছন্দের। সঙ্গে বেগুনভর্তা ও চিংড়ির তরকারি। জাপানি খাবার সুশির প্রতি ভালোবাসার কথাও জানিয়েছেন।

লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিওলিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও
দীর্ঘ অভিনয়জীবনে পর্দায় তাঁকে অনেকবারই খাবারসহ দেখা গেছে। তবে পর্দার ওপারের ডিক্যাপ্রিওর পছন্দের খাবার সম্পর্কে জানা গেছে কমই। একবার শুধু বলেছিলেন, পছন্দের খাবার পাস্তা। ব্যস, এটুকুই। নিজের সম্পর্কে মুখ খুলবেন না। যদিও মানুষের সঙ্গে মিশতে তাঁর জুড়ি নেই। তবে ওটা নাকি তিনি নিজেকে উদ্ঘাটন করতেই করেন। নিজেকে মেলে ধরতে নয়।

কেট মিডলটনকেট মিডলটন
‘রাজসিক’ শব্দটা শুনলেই মনে হয় রাজরাজড়াদের কারবার, সাধারণ মানুষের জন্য নয়। এটা ঠিক যে চাইলেই সবাই রাজপরিবারের অংশ হতে পারে না, তবে একটু চেষ্টা করলেই কিন্তু তাঁদের মতো করে খাওয়া যায়। ব্রিটিশ রাজপরিবারের পুত্রবধূ কেট মিডলটনের কথা বলা যাক। তাঁর পছন্দের তালিকায় খুব একটা আহামরি খাবার কিন্তু নেই। স্বাস্থ্যকর কিছু পছন্দ করেন। শিম-জাতীয় সবজি, সালাদ, স্যামন মাছ এবং মাঝেমধ্যে বারবিকিউ—এই তো। তবে ‘স্টিকি টফি পুডিং’ তাঁর খুব পছন্দের বলে জানিয়েছিলেন একবার। তাঁর সঙ্গী প্রিন্স উইলিয়ামের যে ‘কটেজ পাই’ খুব পছন্দের, তা মোটামুটি জগৎ বিদিত। এর বাইরে রোস্টেড চিকেন ভালো লাগে তাঁর, মাঝেমধ্যে স্ত্রী কেট নাকি বানিয়ে খাওয়ান। জ্যাম দিয়ে বানানো ‘জ্যাম রলি-পলি’ নামের একধরনের পেস্ট্রি ছোট থেকেই এই ব্রিটিশ রাজপুত্রের পছন্দ।

গ্রন্থনা: মেহেদী হাসান
সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান, পপসুগার, টাইমস অব ইন্ডিয়া, ভ্যানিটি ফেয়ার

http://www.prothom-alo.com/life-style/article/867661/%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%93-%E0%A6%AD%E0%A7%8B%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%95

 

home made foodies voice good food dhaka foodies restaurants
Was this review helpful? Yes
0 Helpful votes

Comments (0)

{{comment.CommentText}}

{{comment.CommentDateFormated}} Like