হোটেল থ্রি স্টার এর অসাধারণ বিফ খিচুড়ি

Must Try | By #Foodiez news Created Mar 21, 2016

আস সালামু আলাইকুম। একমাত্র আল্লাহই আমার জন্য যথেষ্ট।
রাত ৪:৪৫ মিনিট।ঘড়ির কাটাও যেন এই সময় ক্লান্ত হয়ে পরে।কিন্তু আমি পরিশ্রান্ত নই।বাতাসে মাতাল করা ফুলের সুবাস।রাত্রি তার সমস্ত রহস্য তাদের কাছেই মেলে ধরে যাদের সেটা দেখার চোখ আছে।আমি হেটে চলছি একা।তিনটা কুকুর অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে আমার দিকে।যেন রাতের রাজপথে শুধু তাদেরই অধিকার।
একটা ঝোড়ো হাওয়া বইছে , টুং টাং আওয়াজ করে একটা খালি ক্যান আমার সামনে অন্ধকার ভেদ করে গড়িয়ে আসছে।ঝনাৎ, পাড়া দিয়ে আটকিয়ে দিলাম তার গতিপথ।তাকিয়ে দেখি চারপেয়ে গুলো আর নেই আশে পাশে।বুঝতে পেরেছে আমার ইন্দ্রিয় তাদের চেয়ে কম সজাগ নয়।
চা এর দোকান গুলো থেকে ছোট্ট আলোর বিন্দু চোখে পরছে।কিছু খেটে খাওয়া মানুষ চা, রুটি খাচ্ছে।

" আমি অপার হয়ে বসে আছি, ওহে দয়াময়
পারে লইয়ে যাও আমারে"

এক বুক হাহাকার নিয়ে এক দরদমাখা সুর রাতের নিস্তব্ধতা কে আরো গভীর বেদনা বিধুর করে দিচ্ছে।কিন্তু আমি থেমে নেই।রাতের মুসাফির দের থামা নিষিদ্ধ। এটি প্রকৃতির এক অলিখিত নিয়ম।

ফজর সালাত এর পরে আমি আস্তে আস্তে উপস্থিত হলাম,মগবাজার ফ্লাই ওভার এর নিচের হটেল থ্রি স্টার এ।অর্ডার দিলাম গরু খিচুড়িরর।সব হোটেল এ তেল তেলা খিচুড়ি খেতে খেতে আর ভালো লাগেনা, শক্ত পাঠার মাংস আর মজা লাগেনা।

তাই খেলাম বিফ খিচুরি।রাইস টা ঝরঝরা। দানা দানা করে আলাদা করা যাবে প্রতিটা চাল।একটা টাটকা সুবাস ছড়িয়ে পরলো গরম খিচুরির ধুয়ার সাথে সাথে। প্রায় ৭ পিস হাড় ছাড়া গরুর মাংসের পিস দিয়েছে।মাংস গুলার সাথে ঝোল লাগানো ছিল। গরম খিচুরির নিচে থাকাতে মাংস আর ঝোলে মাখা মাখি।নলা করে মুখে দিতে থাকলাম কচি শশা তে কামড় দিতে দিতে।মাংস গুলি সফট আছে।পরিমানেও প্রচুর।এক্সট্রা রাইস নিলাম হাফ প্লেট।বলতে ভুলে গেসি,এক বাটি বিফের ঘন ঝোল দেয় সাথে।সেইটা দিয়ে মাখিয়ে এক্সট্রা রাইস টা খেলাম।ঝোল এর কালার টা লালচে এবং টেস্টেও দারুন।লাস্টে একটা স্প্রাইট।আলহামদুলিল্লাহ।

এইখানে সকালে পরটা,পায়া,মুগের ডাল,গরু ভুনা পাওয়া যায়। এদের সাদা পোলাও আর মুরগি মুসাল্লাম আমার এক সময়ের ফেভারিট ছিল।মুসাল্লাম টা পুরাই বিয়ে বাড়ি স্টাইলে রান্না করা হইত আগে।এখন কেমন জানিনা।

বিফ খিচুড়ি ১৩০
স্প্রাইট ১৫ 
হোটেল থ্রি স্টার,মগবাজার

রেস্টুরেন্ট থেকে বের হতেই বৃষ্টি শুরু হলো।বৃষ্টির পানিতেও চোখের জল কে আলাদা করে চেনা যায়। কিন্তু একজন বাদশাহর কান্না কে দেখতে হলে তার হৃদয় কে চিরে দেখতে হবে।এবং এটা হবে রোজ কিয়ামতের দিন।সকল বাদশাহ দের বাদশাহ আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নির্দেশে।যিনি প্রতিটা বান্দার অন্তরের খবর জানেন।
জাজাকাল্লাহ খায়রান
(বাদশাহ সুলতান)‎

Source: https://www.facebook.com/photo.php?fbid=161101337614576&set=pcb.1289960187687006&type=3&theater

Was this review helpful? Yes
0 Helpful votes

Comments (0)

{{comment.CommentText}}

{{comment.CommentDateFormated}} Like