Foodiez Magazine

বাংলা খাবার এর থেকে কি মালেশিয়ার খাবার বেশী সুস্বাদু?

মালয়েশিয়াতে খাবারের বেশ সুনাম রয়েছে, মালয়ী, টম ইয়াম, থাই, চায়নিজ থেকে শুরু করে উপমহাদেশীয় খাবারও একদম হাতের নাগালে। তবে যেই দেশে গেলাম সেই দেশের খাবারটা তো চেখে দেখা ফরজ। কোটা কিনাবালু (সাবাহ প্রদেশ) এ দুপুরের খাবারের সেই স্বাদ একদম মুখে লেগে আছে, একে একে বর্ননা দিচ্ছি

ফিশ কেক- দেখে ভেবেছিলাম শুটকি জাতীয় কিছু বরবটি দিয়ে দিয়েছে, কিন্তু স্বাদে তা মনে হলোনা, আমাদের দেশেও ফিশ কেক পাওয়া যায়, তবে এটা কেক এর মতো কিছুনা। ভাতের সাথে খেলাম, দারুন সুস্বাদু।

ডাগিং মেরা – মালয়ীরা বিফ কে বলে ডাগিং, দেখতে অনেকটা আমাদের দেশের কালা ভুনা / আচারি মাংসের মতো, কিন্তু স্বাদে আমার কাছে ভুনা মাংসের মতোই লাগলো। গরম ভাতের সাথে খেতে বেশ ভালো।

ইকান বাকার – এটা মুলুত ইন্দোনেশিয়ান / মালয়ি খাবার। মাছের বারবিকিউও বলা যায়, চারকোল দিয়ে গ্রিল করে যেটা বানায়, সেটার স্বাদ অস্থির। তবে সৈকত শহর কিনাবালুতে সামুদ্রিক মাছ ভেজে ভুনা করে দিয়েও ইকানবাকার আইটেম বিক্রি করে, দাম কিছুটা কম, তবে স্বাদে ঠকি নাই।

লেমু তেহ – সোজা বাংলায় এটা হচ্ছে লেবু চা, মালয়েশিয়াতে আমরা ধুমায়া এই চা খেলাম, ওদের লেবুটা ছোট, অনেকটা আমাদের দেশের কাগজী লেবুর মতো, এক মগ চায়ে ২-৩টা লেবু কেটে, একটু চিপে আস্তটাই দিয়ে দেয়, চা কিছুটা টক টক লাগে, তবে বাড়তি চিনি মেশালে আর সমস্যা নাই, এক মগেই চাংগা। তবে একটা জিনিস আগে থেকে বলে না দিলে, লেবু চা কিন্তু বরফ মিশিয়ে পরিবেশন করবে, গরম চা খেতে চাইলে অর্ডারের সময়ই বলে দিতে হবে।

ওদের রেস্টুরেন্ট এ বেশির ভাগই মেয়েরা কাজ করে, যারা মুলত ছাত্রী, সুতরাং ইংরেজী বোঝে, ওদের সাথে কথা বলতেও তেমন সমস্যা হয়না, সক্কাল বেলা শুধু পরটার সাথে ডিম কিভাবে দিতে হবে, ঐটা না বুঝেই বলে দিছিল বুঝছে, যেটা প্লেটে আসার পরে বুঝেছি আসলে বুঝেনি!

মালয়ী খাবার বেশ সুস্বাদু হলেও উপমহাদেশের খাবার এর স্বাদ তুলনায় অনেক পিছিয়ে থাকবে, আমার কাছে বাংলা খাবার এর উপরে কোন cuisine নাই।

Tourist Mun

 

Source: https://www.facebook.com/groups/1469734626627557/permalink/1705043576429993/

Was this review helpful? Yes
1 Helpful votes